মৃত. জাহের মিয়া বেঁচে দেশে ফিরলেন ১৩ বছর পর!

আন্তর্জাতিক
Typography
  • Smaller Small Medium Big Bigger
  • Default Helvetica Segoe Georgia Times

মৃত. জাহের মিয়া বেঁচে দেশে ফিরলেন ১৩ বছর পর!


দীর্ঘ ১৩ বছর নিখোঁজ থাকার পর পরিবারের কাছে ফিরলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থানার চাঁনপুর গ্রামের জাহের মিয়া। দীর্ঘদিন খোঁজ না থাকায় জাহের মিয়ার পরিবারের সদস্যদের  ধারনা  ছিল  হয়তো  কোনো দুর্ঘটনায় তিনি মারা গেছেন। তার বেঁচে থাকার খবরে  আনন্দে উদ্বেলিত স্ত্রী পেয়ারা বেগম ও তার তিন সন্তান কান্নায় ভেঙ্গে  পড়েন।      

মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতি মালয়েশিয়ার সহযোগিতায় সম্প্রতি স্মৃতিশক্তি হারানো মানসিক ভারসম্যহীন জাহেরকে পরিবারের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার রাহাদুজ্জামান জানান, প্রায় দেড় বছর আগে অসুস্থ জাহেরকে কে বা কারা কুয়ালালামপুরের  অদূরে ক্লাং হাসপাতালের সামনে ফেলে রেখে চলে যায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের প্রাথমিক চিকিৎসায় তার জ্ঞান ফিরে আসলেও জাহেরের স্মৃতিশক্তি হারিয়ে যায়। কোনো স্বজনের খোঁজ না পাওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি বাংলাদেশ হাইকমিশনকে অবহিত করে।

তবে হাইকমিশন পড়ে বিপাকে, লোকটি বাংলাদেশি নিশ্চিত হওয়া গেলেও জাহের তার ঠিকানা লিখতে বা বলতে পারে না। পরিচয় খুঁজতে নানা পদ্ধতি অবলম্বন করলেও দীর্ঘ সময়ে কোন খোঁজ মেলেনা। এ নিয়ে আরটিভি অনলাইনসহ বেশ কিছু পত্রিকায় সংবাদও প্রচার হয়েছে।

এ অবস্থায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় মালয়েশিয়াস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সমিতির সভাপতি নাজমুল ইসলাম বাবুল ও সাধারণ  সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার রাহাদুজ্জামানসহ সমিতির অন্যান্য সদস্যরা। কারণ বাংলাদেশের ম্যাপ দেখিয়ে  তারা অনেকটা নিশ্চিত হয় যে লোকটির বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া। সম্প্রতি চাঁনপুর গ্রামে লোকটির ছবি দেখে পরিবারের সদস্যরা জাহের মিয়ার পরিচয় নিশ্চিত করেন। শুরুতেই বিশ্বাস করতে  পারেনি পুরো  বিষয়টা। কারণ দীর্ঘ সময় ধরে  কোনা যোগাযোগ না থাকায় তাদের  ধারনা ছিল জাহের  মিয়া  মারা গেছেন। তার বেঁচে থাকার খবরে  আনন্দে উদ্বেলিত স্ত্রী পেয়ারা বেগম ও তার তিন সন্তান কান্নায়  ভেঙ্গে  পড়েন।    

তবে  জাহের মিয়ার দেশে ফেরার  পথে বাঁধা  হয়ে দাঁড়ায় হাসপাতাল  কর্তৃপক্ষের কয়েক লাখ রিঙ্গিতের  ঋণের বোঝা। অসচ্ছল পরিবারের  পক্ষে এই টাকা  সংগ্রহ করা অসম্ভব হয়ে  পড়ে।

মালয়েশিয়াস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতির উদ্যোগে, বাংলাদেশ হাইকমিশনের সহযোগিতায় ৩ জুন বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে মানসিক ভারসাম্যহীন জাহেরকে দেশে পাঠানো হয়েছে।

অসহায় জাহেরকে দেশে পাঠিয়ে ফেসবুকে দেয়া  এক স্ট্যাটাসে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার রাহাদুজ্জামান লিখেছেন, আজ মনে হচ্ছে মানবতা এখনও উজ্জীবিত, সত্যি প্রবাসে এসোসিয়েশন গড়ার স্বার্থকতা খুঁজে পাওয়া গেল। যার মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা এসোসিয়েশন তথা ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীর সুনাম অর্জন হবে বলে আশা করছি।

সার্বিক সহযোগিতার জন্য তিনি ধন্যবাদ জানান সমিতির সভাপতি নাজমূল ইসলাম বাবুল, সহ-সভাপতি সাইদুর সরকার, সহ- দপ্তর সম্পাদক শামীম, মালেশিয়া আওয়ামীলীগের যুগ্ন- আহ্বায়ক ওহিদুর রহমান অহিদ, শফিকুর রহমান চৌধুরী, শাহ আলম হাওলাদার, কৃতজ্ঞতা জানান হাই কমিশনের লেবার কাউন্সিলর সায়েদুল ইসলাম, প্রথম সচিব (শ্রম) হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল, কল্যানসহকারী মোকসেদ আলীসহ সমিতি'র অন্যান্য সদস্যদেরকে।