‘শিল্পীদের কোনো বর্ডার নেই তারা সকল দেশের’

ঢালিউড
Typography
  • Smaller Small Medium Big Bigger
  • Default Helvetica Segoe Georgia Times

‘শিল্পীদের কোনো বর্ডার নেই তারা সকল দেশের’

আকবর হোসেন পাঠান, চিত্রনায়ক ফারুক নামেই পরিচিত। সম্প্রতি ঘোষিত ২০১৬ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন তিনি। পুরস্কারপ্রাপ্তি এবং ঢাকাই চলচ্চিত্রের নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন ‘মিয়াভাই’ খ্যাত এই কিংবদন্তি অভিনেতা।

ফারুক বলেন, চলচ্চিত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ২০১৬ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে আমাকে আজীবন সম্মাননা দেয়া হচ্ছে। এই প্রাপ্তিটা অন্যরকম। এতে আনন্দ-বেদনা ও ক্ষোভের মিশেল রয়েছে। ক্ষোভটা হচ্ছে এর আগে ১৯ বার আমাকে জাতীয় পুরস্কারে সেরা অভিনেতার পুরস্কার দিতে গিয়েও বাদ দেয়া হয়েছে। আমার একটাই অপরাধ-আমি বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করি। ভাবছিলাম, অনুষ্ঠানে যাব না। পরে সিদ্ধান্ত বদল করেছি। কারণ বঙ্গবন্ধুকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থেকে এ পুরস্কার দেবেন। তাই অনুষ্ঠানে না যাওয়া মানে তাকে অসম্মান করা। শুধুমাত্র আপাকে (প্রধানমন্ত্রী) সম্মান জানাতেই আমি অনুষ্ঠানে যাবো।

‘লাঠিয়াল’, ‘নয়নমণি’, ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’, ‘প্রতীক্ষা’, ‘সাহেব’, ‘সুজন সখী’, ‘কথা দিলাম’, ও ‘সারেং বৌ’ সিনেমায় অভিনয় করে তুমুল দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছেন ফারুক। বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে চাইলে তিনি সিনেমাও পরিচালনা করতে পারতেন। কিন্তু তা করেননি। কারণ সমস্যায় জর্জরিত সিনেমা হল এবং এর ব্যবস্থাপনা। তিনি বলেন, আমারও একসময় সিনেমা বানানোর ইচ্ছা ছিলো, কিন্তু সিনেমা হলের সমস্যা দূর না হলে আমি ছবি নির্মাণ করবো না।

ভিনদেশি শিল্পী এবং তাদের কাজ নিয়ে ফারুক বলেন, বাংলাদেশের শিল্পী রুনা লায়লা গান গেয়ে সারা বিশ্ব মাতাচ্ছেন। বিভিন্ন দেশে গিয়ে গান করছেন। কই কোনো সমস্যা তো হচ্ছে না। আমাদের মনে রাখা দরকার, শিল্পীরা সবার। সকল দেশের। তাদের কোনো পার নেই, বর্ডার নেই। তবে হ্যাঁ, ভিনদেশে কাজ করার ক্ষেত্রে অবশ্যই সেদেশের সকল নিয়মকানুন মেনে চলতে হবে। অবৈধভাবে কিংবা সরকারকে ফাঁকি দিয়ে কোনো কিছুই করা যাবে না।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের এই দুঃসময় উত্তরণে ডিজিটাল ফরম্যাট বাদ দেয়ার পরামর্শ দেন লাঠিয়ালখ্যাত অভিনেতা ফারুক। তিনি বলেন, যারা ডিজিটাল ফরম্যাটকে পুশ করেছেন, তারা নিজেদের স্বার্থের জন্য করেছেন। চলচ্চিত্র পরিবারের এই নেতা অন্যায়ের বিরুদ্ধে সদা সোচ্চার। জীবনের শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্তও এভাবেই কাটাতে চান তিনি। ফারুক বলেন, সত্য বলেছি, বলছি এবং ভবিষ্যতে বলবও। কোনোভাবেই আমার কণ্ঠ স্তব্ধ করা যাবে না।