সফটওয়্যার রফতানি বেড়েছে ১০ গুণের বেশি

তথ্যপ্রযুক্তি
Typography
  • Smaller Small Medium Big Bigger
  • Default Helvetica Segoe Georgia Times

সফটওয়্যার রফতানি বেড়েছে ১০ গুণের বেশি

অনলাইন ডেস্ক : দেশীয় সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলো তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর সেবায় মানসম্পন্ন ও সাশ্রয়ী হওয়ায় স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি ক্রমেই বাড়ছে আন্তর্জাতিক বাজার। বিশ্বের প্রায় শতাধিক দেশে বর্তমানে রফতানি হচ্ছে বাংলাদেশি সফটওয়্যার। গত পাঁচ বছরে এ রফতানি বেড়েছে প্রায় ১০ গুণের বেশি।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড সার্ভিসেসের (বেসিস) তথ্যমতে, ২০১১-১২ অর্থবছরে দেশের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর সেবা রফতানি ছিল প্রায় সাত কোটি আট লাখ ডলার। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৮০ কোটি ডলার। অর্থাৎ পাঁচ বছরে রফতানি বেড়েছে ৭২ কোটি ৯২ লাখ ডলার বা এক হাজার ৩০ শতাংশ। অর্থাৎ পাঁচ বছরের ব্যবধানে ১০ দশমিক ৩০ গুণ রফতানি বেড়ে গেছে। এর মধ্যে ২০১২-১৩ অর্থবছরে সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর সেবা রফতানি ছিল প্রায় ১০ কোটি ডলার। আর ২০১৩-১৪ অর্থবছরে রফতানি আয় ছিল প্রায় ৩৫ কোটি ডলার। এর পরবর্তী অর্থবছরে অর্থাৎ ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রফতানি ছিল সাড়ে ৪৪ কোটি ডলার। আর ২০১৫-১৬ অর্থবছরে রফতানি ছিল প্রায় ৭০ কোটি ডলার।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেন, বাংলাদেশের প্রযুক্তিবিদরা বিশ্বের অনেক জায়গার সফটওয়্যার তৈরি করছেন। প্রতি বছরই আমাদের তৈরি সফটওয়্যারের চাহিদা বাড়ছে বিশ্ব বাজারে। এখন প্রযুক্তি খাতে সারা বিশ্বেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন আমাদের দেশের তরুণরা ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এ খাতে কর্মরত আছেন আড়াই লাখের বেশি লোক। সঠিক পরিকল্পনায় এগোতে পারলে অর্থাৎ হাইটেক পার্কসহ বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য এ বছর এ খাতে প্রায় ১০ লাখ লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। সফটওয়্যারের অভ্যন্তরীণ বাজার ক্রমেই বড় হচ্ছে, যার আকার ৪৫ থেকে ৫০ কোটি ডলার। রফতানি আয় যোগ করলে এ খাতের আকার এখন ৭০ কোটি ডলারের বেশি। কাজের ধরন অনুযায়ী সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলো দুই রকম আইটি কোম্পানি ও সফটওয়্যার-নিয়ন্ত্রিত সেবা প্রদানকারী বা আইটিইএস কোম্পানি। বেসিসের সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলোর ৪৫ ভাগ আয় আসে সফটওয়্যার বিক্রি করে, বাকি ৫৫ ভাগ আয় আসে আইটিইএস-সংক্রান্ত সেবা থেকে।

জরিপ সূত্রে জানা যায়, দেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে (আইসিটি) গত ৯ বছরে সফটওয়্যারের মার্কেট বৃদ্ধি পেয়েছে ৫৭.২১ শতাংশ। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে এটি আয় করেছে আট বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এছাড়া দেশীয় বাজার থেকে রফতানি বাড়াতে নিবন্ধন করা হয়েছে প্রায় ১৫৪ কোটি ডলার।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারের পাশাপাশি বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো নিজ উদ্যোগে নতুন নতুন মার্কেট খুঁজে বের করে কাজ করছে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের ১০টির বেশি প্রতিষ্ঠান ভারত, নেপাল, ভুটান, মালয়েশিয়া, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, আফ্রিকাসহ বিভিন্ন দেশে অফিস খুলে কাজ করছে। এর মধ্যে রিভ সিস্টেমস, টাইগার আইটি, ডাটাসফট, দোহাটেক, ই-জেনারেশন, সাউথটেক, ড্রিম অ্যাপ, সিসটেক ডিজিটাল উল্লেখযোগ্য।